কলার অপকারিতাঃ অত্যান্ত সুস্বাদু ও পুষ্টি গুণে সমৃদ্ধ একটি ফল হল কলা।যা কাঁচা অবস্থায় সবজি ও পাকলে ফল হিসেবে ও খাওয়া যায়।পাকা কলায় রয়েছে উচ্চ মাত্রার ক্যালোরি যার ফলে কলা খাওয়ার পর পেট ভর্তি থাকে অনেক সময়।নিয়মিত কলা খেলে শরীরের অন্যান্য পুষ্টির চাহিদা খুব সহজেই পূরণ হয়।তবে এতো গুলো উপকারিতা থাকলেও অত্যধিক পরিমাণে কলা খাওয়ার কিছু মারাত্মক অপকারিতা ও রয়েছে।যা আমাদের শরীরের জন্য খুবই বিপদ জনক।তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক কলার অপকারিতা গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত। আরও দেখুনঃ সাধারন জ্ঞান

কলার অপকারিতা

জেনে নিন কলার অপকারিতা

ক্লান্তিঃ পাকা কলাতে ট্রিপটোফ্যান অ্যামাইনো এসিড রয়েছে। এই এমাইনো এসিড এর প্রভাবে মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা হ্রাস পায়। এবং দেহের ক্লান্তি আসে ও মাথা ঝিমঝিম সহ সব সময় ঘুম পায়।

হাইপারক্যালেমিয়াঃ সাধারণত রক্তে পটাশিয়ামের মাত্রা বেড়ে গেলে এই রোগে আক্রান্ত হয়। কলায় উচ্চমাত্রায় পটাশিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম থাকায় অত্যাধিক পরিমাণে খেলে হাইপার ক্যালিমিয়া রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিরা সহজে ক্লান্ত হয়ে পড়েন এবং হৃদপিন্ডের স্পন্দন অনিয়মিত হয়ে থাকে। আরও দেখুনঃ নামের অর্থ

দাঁতের ক্ষয়ঃ কলাতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে শর্করা। যার কারণে বেশি কলা খেলে দাঁতের ক্ষয় হয়। বলা হয়ে থাকে দাঁতের স্বাস্থ্যের জন্য কলার চকলেটের থেকেও বেশি ক্ষতিকর।

ওজন বৃদ্ধিঃ সাধারণত মাঝারি সাইজের একটি পাকা কলায় ১০৫ ক্যালোরি শক্তি থাকে। তাই বেশি কলা খেলে ওজন দ্রুত বৃদ্ধি হওয়ার সম্ভাবনা খুব বেশি থাকে।

মাইগ্রেনঃ যাদের মাইগ্রেনের সমস্যা আছে তাদের যতটা সম্ভব কলা এড়িয়ে চলা উচিত। কারণ কলায় টাইরামাইন নামে এক ধরনের উপাদান রয়েছে যা মাইগ্রেনের কারণ।

Google News

ডায়াবেটিসঃ গলায় সুগারের পরিমাণ অর্থধিক মাত্রায় থাকার কারণে ডায়াবেটিসের সম্ভাবনা থাকে।

গ্যাসঃ কলাতে ফোটোস এবং ফাইবার একসঙ্গে থাকার ফলে গ্যাস হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

পেট ব্যথাঃ কলায় অত্যাধিক পরিমাণে শর্করা থাকার কারণে ও বাজার থেকে কেনা কলার বেশিরভাগই রাসায়নিকের সাহায্যে পাকানোর ফলে পেট ব্যথা হতে পারে।

কোষ্ঠকাঠিন্যঃ সাধারণত গলার গৃহদন্তের চলনে সাহায্য করে থাকে। তবে বেশি পরিমাণে কলা খেলে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

নার্ভঃ কলায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি৬ রয়েছে। আর আমরা জানি যে বেশি পরিমাণে ভিটামিন বি৬ বেশি খাওয়ার প্রভাবে স্নায়ুতন্ত্রের ক্ষতি হয়ে থাকে। তাই বেশি পরিমাণে কলা খাওয়া উচিত নয়।

এলার্জিঃ অনেক সময় কলা এলার্জির কারণ হয়ে থাকে। যার ফলে ঠোঁট ফুলে যায়, গলা জ্বালা করে।

শ্বাসকষ্ট জনিত সমস্যাঃ যাদের শ্বাসতন্ত্রের সমস্যা রয়েছে তারা বেশি পরিমাণে কলা খেলে তাদের শ্বাসকষ্ট বেড়ে যেতে পারে।

আরও দেখুনঃ